রজব মাসের ফযিলত ও আমল

রজব মাস হল আশহুরুল হুরুম তথা সম্মানিত চার মাসের অন্যতম মাস। নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেন –

إن الزمان قد استدار كهيئته يوم خلق الله السماوات والأرض السنة اثنا عشر شهرا منها أربعة حرم ثلاثة متواليات: ذو القعدة وذو الحجة والمحرم ورجب شهر مضر الذي بين جمادى وشعبان 

অর্থাৎ নিশ্চয় নভােমণ্ডল ও ভূমণ্ডল সৃষ্টির দিন হতে কাল আপন অবস্থায় আবর্তিত হচ্ছে। বার মাসে এক বছর। তম্মধ্যে চারটি মাস হল সম্মানিত মাস। তিনটি যথা যুলকদ, যুল হাজ্জাহ ও মুহররম মাস হল ধারাবাহিক আর অপরটি হল রজব মাস যাকে মুদ্ধর মাসও বলা হয়। এটি জমাদিউস সানী ও শাবান মাসের মধ্যখানে অবস্থিত। (ফাযায়েলুল আওয়কাত)

রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেন-

إن رجب شهر الله ويدعى الأصم، وكان أهل الجاهلية إذا دخل رجب يعطلون أسلحتهم يضعونها، فكان الناس يأمنون وتأمن السبل، ولا يخافون بعضهم بعضا حتى ينقضي 

অর্থাৎ নিশ্চয় রজব মাস হল আল্লাহর মাস। এ মাসকে বধির মাস বলা হয়। জাহেলী যুগের লােকেরা রজব মাস আসলে তাদের যুদ্ধাস্ত্র অকেজো এবং নষ্ট করে ফেলত। ফলে লােকেরা নিরাপদে বসবাস করতাে এবং যাতায়াত পথও নিরাপদ থাকত। রজব মাস শেষ হওয়া পর্যন্ত পরস্পর পরস্পরকে ভয় করতাে না। (ফাযায়েলুল আওয়কাত)

রজব মাসের সম্মানার্থে জাহেলী যুগের লােকেরা যুদ্ধ বিগ্রহ বন্ধ রাখতাে ফলে মানুষ নিরাপদে বসবাস এবং যেখানে সেখানে যাতায়াত করতে পারতাে। রজব মাসের ফযিলত সম্পর্কে নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেন –

إن في الجنة نهرا يقال له: رجب، أشد بياضا من اللبن وأحلى من العسل من صام من رجب يوما سقاه الله من ذلك النهر 

অর্থাৎ নিশ্চয় জান্নাতে একটি নদী আছে যার নাম রজব। এই নদীর পানি দুধের চেয়েও শুভ্র এবং মধুর চেয়েও মিষ্টি। যে ব্যক্তি রজব মাসে একদিন রােযা রাখবে আল্লাহ তায়ালা তাকে ঐ নদীর পানি পান করাবেন। (প্রাগুক্ত)

নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম আরও বলেন-

من صام يوما من رجب كان كصيام سنة، ومن صام سبعة أیام غلقت عنه سبعة أبواب جهنم، ومن صام ثمانية أيام فتحت له ثمانية أبواب الجنة، ومن صام عشرة أيام لم يسال الله عزوجل شيا إلا أعطاه، ومن صام خمسة عَشرَ يوما نادى مناد من السماء قد غفر لك ما سلف فاستأنف العمل قد بدلت سيئاتك حسنات، ومن زاد زاده الله وفي رجب حمل نوخ في السفينة، فصام نوح عليه السلام وأمر من معه أن يصوموا جرت بهم السفينة ستة أشهر إلى آخر ذلك لعشر خلون من المحرم

অর্থাৎ যে ব্যক্তি রজব মাসে একদিন রোযা রাখবে সে যেন এক বছর রােযা রাখল। আর যে ব্যক্তি সাত দিন রােযা রাখবে তার জন্য জাহান্নামের সাতটি দরজা বন্ধ করে দেওয়া হবে। যে ব্যক্তি আটদিন রােযা রাখবে, তার জন্য জান্নাতের আটটি দরজা খুলে দেওয়া হবে। যে ব্যক্তি দশটি রােযা রাখবে সে আল্লাহর কাছে যা চাইবে তা দেবেন। যে ব্যক্তি পনের দিন রােযা রাখবে আসমান থেকে এক আহবানকারী আহবান করবে- তােমার পূর্ববর্তী সব গুনাহ ক্ষমা করে দেয়া হয়েছে। সুতরাং তুমি এখন নতুন করে আমল আরম্ভ কর। তােমার পাপসমূহকে পূণ্যে রূপান্তরিত করে দেয়া হয়েছে। আর যে ব্যক্তি আরাে বেশী রােযা রাখবে ও আমল করবে, আল্লাহ তায়ালা তাকে আরাে বাড়িয়ে দেবেন। রজব মাসেই হযরত নুহ (আ.) নৌকায় আরােহণ করেছিলেন। তখন তিনি নিজেই রােযা রেখেছিলেন এবং তাঁর সঙ্গীদেরকেও রােযা রাখার নির্দেশ দেন। তাদেরকে নিয়ে নৌকা ছয় মাস চলার পর মুহররমের দশ তারিখে মুক্তি লাভ করেন। (প্রাগুক্ত)

হযরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেন-

الله من الشهور شهر رجب، وهو شهر الله عز وجل، من عظّم شهر رجب فقد عظّم أمر اللّه ومَن عظّم أفر اللّه أذخله جنات النعيم وأوجب له رضوانه الأكبر، وشعبان شهري من عظم شهر شعبان، فقد عظم أمري، ومن عظّم أمري كنت له فرطا وذخرا يوم القيامة، وشهر رمضان شهر أمتي، من عظم شهر رمضان، وعظم حرمته ولم ينتهكه وصام نهاره وقام ليله وحفظ جوارحه خرج من رمضان وليس عليه ذنب يطلبها الله به

অর্থাৎ আল্লাহর কাছে প্রিয় মাস হলাে রজব মাস। এটি আল্লাহর মাস। যে ব্যক্তি এ মাসকে সম্মান করবে সে আল্লাহর আদেশকে সম্মান করল। আর যে আল্লাহর আদেশকে সম্মান করবে আল্লাহ তাকে জান্নাতুন নাঈম নামক বেহেশতে প্রবেশ করাবেন এবং তার জন্য আল্লাহর সর্বোচ্চ সত্তুষ্টি আবশ্যক হবে। শাবান আমার মাস। যে ব্যক্তি শাবান মাসকে সম্মান করবে আমি কিয়ামতের দিন তার নাজাতের উসীলা হবো।আর রমযান মাস হল উম্মতের মাস। যে ব্যক্তি রমযান মাসকে সম্মান করবে, রমযান মাসের সম্মান অক্ষুন্ন রাখবে, দিনের বেলায় রােযা রাখবে আর রাতের বেলায় নামায পড়বে আর রমযান মাসের যাবতীয় করণীয় কার্যক্রমকে সংরক্ষণ করবে রমযান মাস চলে যাবে কিন্তু তার মধ্যে এমন কোন গুনাহ থাকবে না যা সম্পর্কে আল্লাহ পাকড়াও করবেন। (প্রাগুক্ত)

হযরত সালমান ফারসী (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন রাসূল সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম এরশাদ করেন –

في رجب يوم وليلة من صام ذلك اليوم وقام تلك الليلة كان كمن صام من الدهر مائة سنة وقام مائة سنة وهو لثلاث بقين من رجب، وفيه بعث الله محمدا صلى الله عليه وسلم 

অর্থাৎ রজব মাসে এমন একটি দিন ও রাত রয়েছে সে দিনে রােযা রাখলে এবং সে রাতে নামায পড়লে একশত বছর রােযা ও একশত বছর নামাযের সাওয়াব পাবে। আর সে দিনটি হল ২৭শে রজব। এ দিনেই আল্লাহ তায়ালা মুহাম্মদ এর নবুয়ত প্রকাশ করেছেন। (প্রাগুক্ত)

হযরত আনাস (রা.) নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম থেকে বর্ণনা করেন, তিনি বলেন-

في رجب ليلة يكتب للعامل فيها حسنات مائة سنة وذلك لثلاث بقين من رجب فمن ثلى فيها اثنتي عشرة ركعة يقرأ في كل ركعة فاتحة الكتاب وسورة من القرآن ،ثم يقول: سبحان الله ،الحمد لله ، ولا إله إلا الله ،والله أكبر ،مائة مرة، ويستغفر الله مائة مرة ويصلي على النبي صلى الله عليه وسلم مائة مرة ،ويدعو لنفسه ما شاء من أمر دنياه وآخرته ، ويصبح صائما، فإن الله يستجيب دعائه كله إلا أن يدعو في معصية 

অর্থাৎ রজব মাসে এমন একটি রাত রয়েছে, সে রাতে ইবাদতকারী একশত বছর ইবাদত করার সমান নেকী অর্জন করবে। আর সে রাতটি হল ২৭শে রজব। যে ব্যক্তি সে রাতে ১২ রাকাত নামায পড়বে, প্রতি রাকাতে সূরা ফাতিহা ও অন্য যে কোন একটি সূরা পাঠ করবে। অতঃপর একশত বার “সুবাহানাল্লাহি ওয়াল হামদুলিল্লাহি ওয়া লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু ওয়া আল্লাহু আকবর পড়বে এবং একশত বার ইস্তেগফার পড়বে ও নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম এর উপর একশত বার দুরূদ শরীফ পড়বে এবং সে নিজের জন্য দুনিয়া-আখিরাতের যা ইচ্ছে দোয়া করবে আর পরের দিন রােযা রাখবে আল্লাহ তায়ালা তার গুনাহের দোয়া ব্যতীত সব দোয়া কবুল করবেন। (প্রাগুক্ত)

হযরত আবু কিলাবা (রা.) থেকে বর্ণিত আছে, তিনি বলেন- في الجنة قصر لصوام رجب অর্থাৎ রজব মাসে রােযা পালনকারীর জন্য জান্নাতে একটি মহল রয়েছে (লাতায়েফুল মা’আরিফ)

 قال ابو بكر الوراق البلخى شهر رجب شهر الزرع وشهر شعبان السقى للزرع وشهر رمضان حصاد الزرع وعنه قال مثل رجب مثل الريح ومثل شعبان مثل الغيم ومثل رمضان مثل المطر 

অর্থাৎ আবু বকর ওয়াররাক বালখী (রা.) বলেন রজব মাস হলাে বীজ বপনের মাস, শাবান হলাে ক্ষেতে পানি দেওয়ার মাস আর রমযান মাস হল ফসল কাটার মাস। তিনি আরাে বলেন- রজব মাস হল বাতাসের ন্যায় এবং শাবান মাস হল মেঘের তুল্য আর রমযান হল বৃষ্টির তুল্য। (লাতায়েফুল মা’আরিফ)

عن أنس قال : كان رسول الله عليه وسلم إذا دخل رجب قال : اللهم بارك لنا في رجب، وشعبان ، وبلغنا رمضان 

হযরত আনাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, যখন রজব মাস আগমন করতো তখন নবী করিম সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম বলতেন, হে আল্লাহ! রজব ও শাবান মাসকে আমাদের জন্য বরকত মণ্ডিত করুন আর আমাদেরকে রমযান মাস নসীব করুন।(ফাযায়েলুল আওকাত)

সূত্র- মাওলানা মুহাম্মদ ওসমান গণী কতৃক রচিত ‘বার মাসের আমল ও ফযিলত” থেকে সংগৃহীত।

বইটি অর্ডার করতে কল করুন- 01639235430 

Related Articles

Back to top button